মালয়েশিয়াতে লকডাউন না থাকলেও আগামী ৬ মাস পালন করতে হবে কঠোর নিয়ম, শীঘ্রই সরকারি ঘোষণা আসছে

মালয়েশিয়াতে রমজান মাসকে ঘিরে যে বড় ধরনের জনসমাগম সৃষ্টি হয় তা এবার আর হচ্ছে না। মালয়েশিয়ার বিগত বছর গুলোর তুলনা এইবার রমজান পালিত হবে ভিন্নভাবে।


মালয়েশিয়াতে আসছে কঠোর নিয়ম, ছবিঃ হারিয়ান মেট্রো
   
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বেধে দেওয়া নিয়মে হবে হবে রমজানের খাবার দাবার বেচাকেনা। উল্লেখিত ছবির মত হবেনা আর রমজান বাজার। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মহাপরিচালক ডাঃ নুর হিশাম আব্দুল্লাহ গতকাল এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছেন যে, রমজান বাজারের মতো জনসমাগম এড়ানো উচিত যদিও মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার বা গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ আদেশ আর কয়েকদিনের মধ্যেই শেষ হবে৷ এক্ষেত্রে আমরা এই এম'সি'ও চলাকালীন সময়ে যেসব সামাজিক

অভ্যাস গুলো শিখেছি সেই মতই আমাদের চলতে হবে। লকডাউন বাএম'সি'ও থাকবেনা কিন্তু জনসাধারণকে সচেতন হয়ে চলতে হবে মেনে চলতে হবে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার নির্দেশ, ও সরকারের বেধে দেয়া অন্যান্য নিয়ম আদেশ মেনে চলতে হবে৷ তিনি আরও বলেছিলেন যে এমসিও বা লকডাউন সময়কাল শেষ হলেও, মালয়েশিয়ার জনগণের অভ্যাসগত রীতিনীতি পরিবর্তন করতে হবে যা আগামী ৬ মাস ধরে চালিয়ে যেতে হবে৷ যদিও লকডাউন শেষ হয়ে যাবে কিন্তু এই
আরও পড়তে ক্লিক করুন👇

বাড়ানো হয়নি মালয়েশিয়া লকডাউন, সিদ্ধান্ত আগামী ১০ এপ্রিলের মধ্যেই নেয়া হবেঃ স্বাস্থ্য মহাপরিচালক
👇 
আজ আরও ৬০ লক্ষ রিঙ্গিত অনুদান পেয়েছেন মহিউদ্দিন ইয়াসিন, যা সর্বমোট ২ কোটি রিঙ্গিত হয়েছে।
👇মালয়েশিয়াতে লকডাউন না থাকলেও আগামী ৬ মাস পালন করতে হবে কঠোর নিয়ম, শীঘ্রই সরকারি ঘোষণা আসছে
👇
মালয়েশিয়াতে আবারও লকডাউন বাড়ানোর আলোচনা, কয়েক লক্ষ শ্রমিককের জীবন বিপন্ন হওয়ার আশংকা।
👇
লকডাউনে মেনে চলা আইন গুলো বা সামাজিক অভ্যাস ও পারিবারিক অবস্থান নিরাপদ দুরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে আগামী ৬ মাস। উদাহরণস্বরূপ,
একের অপরের সাথে হ্যান্ড শেক বা করমর্দন করা, আমাদের হাত পরিস্কার বা স্যানিটাইজ করা ও কমপক্ষে ১ মিটার দুরত্ব বজায় রেখে অবস্থান করা এবং বিভিন্ন ধরনের গনজমায়েত মূলক কার্যক্রম আগামী ৬ মাস থেকে ১ বছর না করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। তবে ঐতিহ্যবাহী রমজানের মত বড় গনজমায়েত এর বাজারে জমায়েত না হয়ে তা ঘরে বসে পালন করাই উত্তম হবে। এম'সি'ও চলাকালীন

 সময়ে হোম ডেলিভারি দিয়ে যেভাবে খাবার নেয়ার ব্যবস্থা করা বা অভ্যাস হয়েছিল সেটার ধারাবাহিকতা বিজায় রাখা যেতে পারে বলে জানান তিনি। তিনি আরও বলেন,  স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করছে এবং সবকিছু ভালোভাবে চিন্তা ভাবনা করে দেখা হবে যে কিভাবে এইসব নিয়মগুলো সম্প্রসারিত করা যেতে পারে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এর আগে সিনিয়র প্রতিরক্ষামন্ত্রী দাতুক ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব বলেছিলেন যে, যতদিন পর্যন্ত মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার বলবৎ থাকবে ততদিন পর্যন্ত রমজানের বাজার পরিচালিত হবেনা। এখনো পর্যন্ত মালাক্কা, নেগেরি সেম্বিলান, তেরেংগানু, সেলাঙ্গর, কেদাহ এবং পেনাং রাজ্যের রমজান বাজারগুলো বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, দেশ টিতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার ফলে, প্রথমে ১৪ দিন এবং পরে তা বাড়িয়ে আরও ১৪ দেয়া হয়েছে যা ১৮ই মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। এর পরে আবারও লকডাউন মেয়াদ বাড়ানো হবে কিনা সেই বিষয়ে মন্ত্রী পরিষদে আলোচনা চলমান রয়েছে।

No comments

Theme images by Dizzo. Powered by Blogger.