রোজা রাখায় দুই দেহরক্ষীকে পেটানোর দায়ে সেই মালিককে ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে মালয়েশিয়া পুলিশ

0
170

মালয়েশিয়ায় রোজা রাখার কারণে দুই দেহরক্ষীকে বেধড়ক পেটানো ঐ ব্যক্তিকে ৩ দিনের রিমান্ড পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছিলো আদালত। রোজা রাখায় ঐ দুই ব্যক্তিকে পেটানোর বিষয়টি নিয়ে পুরো মালয়েশিয়ায় তোলপাড় বিরাজ করছে।

কুয়ালালামপুরের ডাং ওয়ানগি জেলা পুলিশ প্রধান, সহকারী কমিশনার মোহামাদ জয়নাল আবদুল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছিলেন যে, 43 বছর বয়সী সন্দেহভাজন ব্যক্তি বর্তমানে ডাং ওয়াঙ্গী জেলা পুলিশ সদর দফতরে (আইপিডি) রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

মোহামেদ জয়নাল গত রাতে এক বিবৃতিতে বলেছে, ঐ ব্যক্তির বিরুদ্ধে পুলিশি প্রতিবেদন প্রকাশের পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৮ টার দিকে সেলেঙ্গোরের ক্লাংয়ের একটি জায়গা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিটি একজন ব্যবসায়ী বলে জানানো হয়েছে তবে পুরোপুরি পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

ভুক্তভোগী ২ জন জিএমপি কায়সার সিকিউরিটি কোম্পানির কর্মচারী যাদেকে গ্রেফতারকৃত ঐ ব্যক্তি তার দেহরক্ষী হিসেবে সিকিউরিটি কোম্পানি থেকে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।

দুজনেই বেশ কয়েক বছর ধরে ঐ ব্যক্তির গার্ড হিসেবে কাজ করে আসছিলো এবং সবসময় ব্যক্তিটি তাদের রোজা রাখা পছন্দ করতোনা তাই ঘটনার দিন রোজা রাখার কারণে তাদের উপর চড়াও হয়ে বেধড়ক পেটায় যার কিছু ছবি এবং ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

 

এদিকে ঐ ব্যক্তিকে বিশেষ সুবিধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে বেশ কিছু মহল থেকে তবে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়।


গ্রেফতারকৃত ঐ ব্যক্তিকে কুয়ালালামপুর ডাং ওয়াঙ্গী পুলিশ সদর দপ্তর হতে দক্ষিন ক্লাং পুলিশ সদর দপ্তরে হস্তান্তর প্রক্রিয়ার সময় ঐ ব্যক্তি ক্ষমা প্রার্থনাসূচক আবেদন করেছিলো।

ডাং ওয়াঙ্গি জেলা পুলিশ প্রধান, সহকারী কমিশনার মোহামাদ জয়নাল আবদুল্লাহ হস্তান্তর প্রক্রিয়ার বিষয়টি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে নিশ্চিত করেছেন এবং তিনি বলেছেন ঘটনাক্রমে এই ঘটনাটি ঘটে যায়।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here