মালয়েশিয়ায় ইমিগ্রেশনের সিস্টেম হ্যাক করে অবৈধদের ভিসা জালিয়াতির মূল হোতা গ্রেফতার

0
152

রিক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামের এজেন্টদের বিভিন্ন কার্যকলাপ চালানো পাকিস্তানি সিন্ডিকেটের এক মূল হোতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন এর চালানো বিশেষ অভিযানে পাকিস্তানি নাগরিকদের এই এজেন্ট কার্যক্রমকে ব্যার্থ করে দেয়া হয়।

কুয়ালালামপুরের জালান ইপোহ এর দুটি স্থানে গোয়েন্দা ও বিশেষ অপারেশন বিভাগের ইমিগ্রেশন অফিসারদের একটি ইউনিট গত ২১ শে এপ্রিল স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় এই অভিযোগ পরিচালনা করে বলে জানানো হয়েছে।

“অপস হ্যাক” নামের এই বিশেষ অভিযানটি গত ৬ই এপ্রিল মালয়েশিয়ার দুর্নীতি দমন কমিশনকে সাথে নিয়ে পরিচালনা করা হয়। এই অপারেশনটির উদ্দেশ্য ছিলো যেসব কোম্পানি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ইমিগ্রেশন এর সিস্টেম হ্যাক করে পিএলকেএস ভিসা স্টিকার ইসু করে আসছে তাদের ট্র‍্যাক করা।

এই অভিযানে 39 বছর বয়সের পাকিস্তানি একজন যিনি সিন্ডিকেটের ‘মাস্টারমাইন্ড’ বা মূল হোতা ছিলেন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। এছাড়াও পাকিস্তানি ব্যক্তিকে সহযোগিতা ও নিরাপত্তা দেয়ার কাজে জড়িত থাকায় ২০ বছর বয়সী ১জন মালয়েশিয়ান মহিলা এবং ২৪ বছর বয়সী ১ জন মালয়েশিয়ান পুরুষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

প্রাথমিক তদন্তে আরও দেখা গেছে যে পাকিস্তানী ব্যক্তি জাল পিএলকেএস ভিসা স্টিকার ব্যবহার করছিল যা অনিয়মিতভাবে জারি করা হয়েছিল।

এই অভিযানে সিন্ডিকেটটির কার্যকলাপ পরিচালনার স্থান থেকে বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং ভিয়েতনাম সহ বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টের মোট ৮১ কপি এব ১৫ হাজার ৯৫০ রিঙ্গিত নগদ অর্থ জব্দ করা হয়েছে।

অভিযান করা স্থানটি রি-ক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামের বিভিন্ন কার্যকলাপ এর মূল কেন্দ্র হিসেবে পরিচালিত হয়ে আসছিলো। যেখানে প্রতিটি অবৈধদের বৈধ হওয়ার জন্য ২০০০ রিঙ্গিত থেকে ৩০০০ হাজার রিঙ্গিত প্রদানের মাধ্যমে নিবন্ধন করার জন্য পাসপোর্ট সংগ্রহ করা হচ্ছিলো। পাসপোর্টের সংখ্যা অনুযায়ী সিন্ডিকেটটি ২ লাখ ৪৩ হাজার রিঙ্গিত বিভিন্ন ভুক্তভোগীর কাছ থেকে সংগ্রহ করেমালয়েশিয়ায়ছে বলে ধারণা করা হয়েছে।

এই সিন্ডিকেট বিশেষ করে যারা মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন আইন অনুযায়ী অপরাধী বা ব্ল্যাকলিস্ট আছে তাদেরকে রি-ক্যালিব্রেশন প্রোগ্রামের নামে বৈধ হওয়ার জন্য পাকিস্তানি নাগরিকদের মাধ্যমে তাদের ক্লাইয়েন্ট সংগ্রহ করে আসছে।

আটককৃত সকলকে আরও তদন্তের জন্য পুত্রজায়া ইমিগ্রেশন সদর দফতমালয়েশিয়ায়রে নেওয়া হয়েছিল। ইমিগ্রেশন বিভাগ জনসাধারণকে বিশেষত বিদেশীদের এবং নিয়োগকারীদের, সরাসরি জেআইএমের মাধ্যমে ভিসার আবেদন করে নিবন্ধন করার আহ্বান জানিয়েছে। কোন ধরনের এজেন্সি, এজেন্ট বা দালাল শ্রেণীর লোকজনের মাধ্যমে রিক্যালিব্রেশন কর্মসূচির কোনো কিছু না করার জন্য হুশিয়ারি দেয়া হয়েছে।





LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here