মালয়েশিয়ায় আবারও ব্যাপক কড়াকড়ি, একজেলা থেকে অন্য জেলায় যাতায়াত বন্ধ

0
258

মালয়েশিয়ায় করোনাভাইরাস এর সংক্রমণ প্রতিরোধে কুয়ালালামপুর ও সেলাঙ্গর রাজ্যে প্রবেশ ও অন্য রাজ্য অতিক্রম করার ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। বিশেষ করে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়্যান্ট এর উপস্থিতি প্রমানিত হওয়ার ফলে দেশেটির সরকার অত্যন্ত কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আসছে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এই ২টি রাজ্য থেকে যেকোনো নাগরিক অন্য রাজ্যে ভ্রমন কিংবা প্রবেশ করতে পারবেনা এবং অন্য রাজ্য হতে এই দুই রাজ্যে প্রবেশ আপাতত বন্ধ করা হয়েছে। অর্থাৎ মালয়েশিয়ায় যান চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও নাগরিকগন আন্তঃজেলা ভ্রমন যেন না করতে পারে সে বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার (৭ই মে) মালয়েশিয়ার জাতীয় বার্তা সংস্থা বার্নামায় এক সাক্ষাৎকারে কুয়ালামপুরের পুলিশ প্রধান দাতু আজমি আবু কাসিম এসব কথা বলেন।

পুলিশ প্রধান বলেন, আজ শনিবার (৮ই মে) থেকে আন্তঃদেশীয় যাতায়াত প্রতিরোধে কুয়ালালামপুর ও সেলাঙ্গরের প্রতিটি টোল পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া রাজধানীর আশেপাশে কমপক্ষে আরও নয়টি চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়েছে। জনগণের গতিপথের উপর কড়া নজর রাখতে টহল পুলিশের অবস্থান বাড়ানো হয়েছে।


অপরদিকে সেলাঙ্গর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দাতুক অর্জুনাইদি মোহাম্মদ বলেন, জনগণ যেন মহাসড়ক ব্যাতীত অন্য কোনো রাস্তা পারাপারের মাধ্যমে রাজ্য সীমান্ত অতিক্রম করতে না পারে সেটা নিশ্চিত করতে পুলিশের পক্ষ থেকে সেলাঙ্গর ও এর আশেপাশের ৫০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৭০ শতাংশ রোডে চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সরকার আশা করছে যে জনগণ তাদের নিজেদের জীবন রক্ষায় এই বিধিনিষেধ প্রতিপালন করবে এবং করোনা ভাইরাস নির্ধারিত প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে আরও সচেতন হবে। সেই সাথে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর লোকজনকে সরকারি দায়িত্ব পালনে সহায়তা করবে।

উল্লেখ্য মালয়েশিয়ায় গতকাল শুক্রবার (৭ই মে) দুপুর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৪৯৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৩২ হাজার ৪২৫ জন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মালয়েশিয়ায় এই প্রানঘাতী ভাইরাসটি মারা গেছেন ১ হাজার ৬৩২ জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩ লাখ ৯৬ হাজার ৪ জন।



 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here